Brands

Sort By:
View:
  • বারীন সাহা
    চলচ্চিত্রাক্ষর

    ‘তেরো নদীর পারে’র মতো ভিন্ন ধারার ছবির পরিচালক বারীন সাহা সারা জীবনে ছবি করার সুযোগ পেয়েছেন ঐ একটাই, তার সঙ্গে ‘চেঞ্চু’ বা ‘ভাসা’র মতো দুটি ডকুমেন্টারি আর ‘শনিবার’-এর মতো স্বল্প দৈর্ঘ্যের একটি ছবির কথা ধরলে যা দাঁড়াবে, তা দিয়ে বাংলা ছবির জাবদা ইতিহাসে তাঁর নাম লেখার মতো প্রায় কোন জায়গাই জোটে না।

    পাশাপাশি এ কথাও স্মর্তব্য যে বারীন সাহা তাঁর সময়ে কেতাবি মতেই রীতিমতো শিক্ষিত পরিচালক ছিলেন। খোদ ইয়োরোপে গিয়ে চলচ্চিত্রের পাঠ নিয়েছিলেন হাতে-কলমে, কতিপয় তাবড় পরিচালককে দেখেছিলেন কাছ থেকে, এমনকী পেশাদার হিসেবে ঐ বিদেশেই কাজ করেছিলেন সহকারের। তাঁর স্থান-কালের পরিসরে এ যোগ্যতা আর কার ছিল? কার ছিল এই অভিজ্ঞতা? তবু কেন আর ছবি করলেন না তিনি, কেন তার কোন সুযোগ পেলেন না? ছবি করলেন না তো সারা জীবন করলেন কী? তার কিছু-কিছু সংকেত মিলবে এই বইতে।

    ভিন্ন ধারার এই চলচ্চিত্র-পরিচালকের লেখা কয়েকটি প্রবন্ধ, সাক্ষাৎকার আর কথোপকথনের বয়ান নিয়ে এই সংকলন। সেই সঙ্গে এই আশ্চর্য মানুষটির জীবন আর কাজকে বোঝার জন্য তাঁর অনুরাগী কয়েকজনের লেখা।

    128 পৃষ্ঠা, 1.36 এমবি

     80.00
  • সুহৃদকুমার ভৌমিক
    শব্দ ও বানান

    শব্দ ও বানান প্রসঙ্গে নামপ্রবন্ধে এ দুটি শব্দের উৎস ও প্রাথমিক অর্থ থেকে লেখক ক্রমে চলে গেছেন ভাষাতত্ত্বের আলোচনায়। এ দেশের বিভিন্ন আদিবাসী ও জনজাতি গোষ্ঠীর ভাষায় তাঁর সহজ যাতায়াত। এরকম বেশ কয়েকটি ভাষার পঠন-পাঠন ও চর্চায় তাঁর ভূমিকা প্রশ্নাতীত। ফলে এ বিষয়ে তাঁর আলোচনা একেবারেই ভিন্ন গোত্রের এবং দিকনির্দেশক।

    এ বইতে রয়েছে ভাষা ও ভাষাতত্ত্ব সংশ্লিষ্ট এরকম আরও কয়েকটি প্রবন্ধ। যেমন উরাঁউ বা ওরাঁওদের ভাষা নিয়ে একটি প্রবন্ধে ভাষার দিক দিয়ে তিনি তাঁদের শ্রেণিবিভাগ করেছেন। আবার র-প্রত্যয়ের উৎস নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে তিনি অসুর সম্প্রদায়ের কথা বিশদে বলেছেন। বাঙালি ও বঙ্গাব্দের উৎস একটি প্রবন্ধে তিনি যেমন বঙ্গাব্দের উৎস চিহ্নিত করেছেন, তেমনি মেঘদূত-এর ছন্দ নিয়ে আলোচনার সূত্রে এই কাব্যের পরিচিত কয়েকটি শব্দ নিয়ে সংগত প্রশ্ন তুলেছেন। আরেকটি প্রবন্ধে ‘গান্ধী’কে ‘গাঁধী’ লেখার যে কোন যুক্তিই থাকতে পারে না, তা স্পষ্ট করেছেন।

    ভাষা নিয়ে একেবারেই ভিন্ন ভাবনার বই।

    48 পৃষ্ঠা, 980 কেবি

     40.00
  • মানিক দাস
    অনেক জোনাকির আলো

    দুর্গম আফগানিস্তান-পাকিস্তানের পার্বত্য এলাকায় স্কুল নেই, ছেলেমেয়েরা লেখাপড়া করতে পারে না। পর্বতাভিযানে গিয়ে পথ-হারানো গ্রেগ মর্টেনসন একক প্রয়াসে সেখানে একের পর এক স্কুল খুলেছেন। সংখ্যাটা নেহাত কম নয়, একশো একাত্তর।

    স্পেনের আন্দালুসিয়ায় ছোট্ট একটা মিউনিসিপাল শহর ম্যারিনালেডা, আসলে একটা গ্রাম। সংসদীয় ব্যবস্থার মধ্যেই নির্বাচিত মেয়র হুয়ান গোরদিলো সেখানে আটকে দিয়েছেন বিশ্বায়নের অবুঝ রথের চাকা। সব কিছুই চলে সেখানে সমবায় প্রথায়, সমস্ত সিদ্ধান্ত যৌথ।

    পাপুয়া-নিউ গিনির অন্তর্গত ছোট্ট দেশ বোগেনভিল। তামার খনি সেখানে সব কিছুই প্রায় বিষিয়ে তুলেছিল। ফ্রান্সিস ওনা-র নেতৃত্বে সাধারণ মানুষ তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে সে-দেশে সম্ভব করে তুলেছেন এক পরিবেশ-বান্ধব বিপ্লব।

    বিকল্প ভাবনায় এই তিন সাফল্যের খতিয়ান নিয়ে এই বই। গভীর অন্ধকারে ছোট-ছোট জোনাকির আলোর মতো এই সব উপাখ্যান।

    48 পৃষ্ঠা, 1.08 এমবি

     40.00
  • শুভেন্দু দাশগুপ্ত
    তখন যেমন এখন তেমন : বাংলা কার্টুনে সময়ের ছবি

    এ দেশের সামাজিক-রাজনৈতিক দুরবস্থা পঞ্চাশ-একশো বছর আগে যেমন ছিল, এখনও মনে হয় রয়ে গেছে তেমনই, পালটায়নি কিছু। বাংলার সংবাদপত্র আর সাময়িকপত্রে প্রকাশিত কার্টুন বা ব্যঙ্গচিত্র নিয়ে গবেষণার সূত্রে এই অপ্রিয় সত্য প্রায় নতুন করে উপলব্ধি করেছেন লেখক।

    গগনেন্দ্রনাথ, চিত্তপ্রসাদ, সোমনাথ হোর, পরিতোষ সেন, রেবতীভূষণ, অমল চক্রবর্তী, সুফি, কাফী খাঁ, চণ্ডী লাহিড়ী, কুট্টি প্রমুখের মূল কার্টুনের প্রতিলিপি-সহ এই বইয়ে রয়েছে প্রাসঙ্গিক তথ্য আর টীকাভাষ্য।

    এ বই কার্টুনের সূত্রে একটা কালপর্বের বাংলার সামাজিক-রাজনৈতিক ইতিহাসও।

    122 পৃষ্ঠা, 5.17 এমবি

     60.00
  • ভোলানাথ ভট্টাচার্য
    পট ও পটুয়া-কথা এবং অন্যান্য কথামালা

    ‘পট’ শব্দের উৎস, তার ইতিহাস; পটের প্রকরণ ও পরিবর্তনের ধারা; অনুরূপ শিল্পনমুনার সঙ্গে তার সাযুজ্য ও সম্পর্ক; পটচিত্রকর বা পটুয়াশিল্পীর পরিচয় এবং আনুষঙ্গিক যাবতীয় বিষয় নিয়ে এই বইয়ের নাম-প্রবন্ধটির তুল্য সার্বিক আলোচনা বাংলাভাষায় আর নেই। সেই সঙ্গে এই বইয়ে বিশদে রয়েছে কালীঘাট পটের কথা, রয়েছে মৃৎশিল্পের খণ্ডচিত্র ও কুমারটুলির কথা। আছে লিপি ও লিখনশিল্প এবং দেহাঙ্গচিত্রণের কথা। প্রবীণ লেখক ও গবেষকের গুরুত্বপূর্ণ প্রবন্ধের সংকলন। বইপত্তর.ইন-এর প্রথম বই।

    pdf version

     50.00
  • শুভেন্দু দাশগুপ্ত সম্পাদিত
    চিহ্ন বদল চিহ্ন দখল : বাংলা ব্যঙ্গ-চিত্র-কথায় নারী

    এই বইটি তিনটি চিত্রকথা নিয়ে সাজানো– ১. নারী-বিদ্রোহ, ছবি ও কথা : যতীন্দ্রকুমার সেন, প্রথম প্রকাশ ১৩২৬ বঙ্গাব্দ; ২. শুভদিন, কথা : অমৃতলাল বসু, ছবি : সতীশচন্দ্র সিংহ, প্রথম প্রকাশ ১৩৩৩ ব.; ৩. একবিংশ-শতাব্দী-নারী-চরিতম, কথা ও ছবি : বিনয়কুমার বসু, প্রকাশ ১৩৩৪ ব.।

    সাম্প্রতিক কালে নারী-আন্দোলনের একটা বিষয় হল, যে-সকল চিহ্ন দিয়ে নারীদের আলাদা করে রাখা হয়, সরিয়ে রাখা হয়, অন্ত্যজ করে রাখা হয়, প্রান্তে রাখা হয়, সেই সকল চিহ্নকে অস্বীকার করা। চিহ্নের মাধ্যমে যে আলাদা করা, চিহ্নকে যে ক্ষমতার হাতিয়ার হিসাবে দেখানো, তার প্রতিবাদ করা। এই বইয়ের তিনটি চিত্রকথায় সেই চিহ্নের কথা, পুরুষ-নির্ধারিত নারীচিহ্নকে অস্বীকার করা, পরিত্যাগ করার কথা আছে। পুরুষ-নির্ধারিত পুরুষচিহ্নে নারীদের অংশগ্রহণ করা ও সেই সব চিহ্নক্ষেত্র দখল করার কথা আছে। কথা আছে নারী-পুরুষ-বিভক্ত পরিসরকে পালটে দেওয়ার । ঠিক এই সময়ে এই সংকলন তৈরি করার বলা যায়, এটাই প্রধান কৈফিয়ত।

    95 pages/ 1.82 MB

     45.00
  • This monograph deals with the history of the pat in various parts of India, the evolution of the pat of Bengal with a special analysis of the Kalighat branch, the patuas, and lastly the history and significance of the Krishna cult in lndia in general and Bengal in particular and the place of this cult in the traditional painting of Bengal. Although the traditional pat of Bengal has had for its subject a host of religious and social themes, the present monograph seeks to introduce the reader to it through illustrations of pats from the author’s personal collection dealing with one particular Hindu deity, namely, Lord Krishna.

     120.00
  • শিল্পকর্ম আর কারুকর্মের মধ্যে তৈরি-করা কোন রকম বিভেদ মানতেন না তিনি, এই বইয়ের লেখক, এ দেশের অন্যতম প্রধান ভাস্কর মীরা মুখোপাধ্যায়। সে কারণেই এক দীর্ঘ সময়কাল জুড়ে তিনি গভীর জিজ্ঞাসা নিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছিলেন বিশ্বকর্মার সন্ধানে। বিশ্বকর্মা, যিনি বিশ্বের সকল কর্মের দেবতা। ভূমিকায় তিনি লিখেছেন, ‘আমার বিষয়বস্তুকে কোন ইতিহাসে পাইনি, যা পেয়েছি তা অস্পষ্ট এবং অলীক হিসেবে পুরাণ, মহাভারতে বিরাজ করেছে। যখন মুখে-মুখে ঘুরে-ঘুরে বিশ্বকর্মাদের কাছ থেকে কিছু-কিছু জেনেছি, তখন বুঝতে পেরেছি অতি গভীর তার মূল, প্রায় আমাদের জানিত সভ্যতার শুরু থেকেই এর সূচনা।’ এই বইয়ে তাই বাস্তবের সঙ্গে কল্পকাহিনী, ইতিহাসের সঙ্গে পুরাণ, সমকালের সঙ্গে লোককথা এমন ভাবে মিশে আছে যে ভ্রম হয় কোনটা প্রকৃত বাস্তব, আর কোনটাই বা আসল ইতিহাস। প্রকৃতপক্ষে মীরা মুখোপাধ্যায়ের জীবনব্যাপী জিজ্ঞাসা ও গবেষণার ফসল এ বই।

     75.00
  • ঋত্বিককুমার ঘটক
    নিজের পায়ে নিজের পথে : এক কথা-কোলাজ

    ঋত্বিককুমার ঘটকের পরিচয় নতুন করে দেওয়ার কিছু নেই। বাংলা চলচ্চিত্রের এই প্রকৃত পথিকৃৎ চলচ্চিত্র নির্মাণের পাশাপাশি তাঁর ভাবনা ও অভিজ্ঞতার কথা যেমন অসংখ্য মূল্যবান রচনায় ব্যক্ত করেছেন, তেমনই বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে মুখে-মুখেও বলেছেন অনেক কথা। সেই সমস্ত সাক্ষাৎকারের বয়ান থেকে তাঁর মুখের কথাকে ভেঙে, নতুন করে সাজিয়ে গড়ে তোলা এই কথা-কোলাজ। এক-একটা বিষয়ের ঘেরে, তাঁর জীবনানুক্রম বজায় রেখে সংকলিত।

    ৪.৩৩ এমবি

     45.00
  • ভাষাস্রোত নদীর স্রোতের মতো কোন প্রাকৃতিক ব্যাপার নয়। একটি ভাষা বিশেষ কোন জনজাতির পরম্পরাক্রমে বাহিত। পূর্বপুরুষ থেকে উত্তরপুরুষের দিকে তার যাত্রা। কোন বিশেষ ভাষা বিচারের আগে আমাদের জানতে হবে কোন্‌ জনগোষ্ঠীর দ্বারা সেই ভাষা বাহিত ও লালিত। কারণ জনজাতিকে না-জেনে কোন ভাষারই বিচার যথাযথ হয় না। বাঙলা ভাষার কাঠামো থেকে যেমন বোঝা যায় অস্ট্রিক বা কোল্ল জাতির মানুষের দ্বারাই এই ভাষার বুনিয়াদ তৈরি হয়েছে। দ্রাবিড় ভাষা-সমূহের নানান ছোট-বড় উপাদান আমরা ভাবপ্রকাশের কাজে লাগিয়েছি, নিয়েছি বিস্তর শব্দও। ভোট-চীনীয়, বিশেষত বোডো ভাষাসাম্রাজ্যের নানা শাখার মাধ্যমে বাঙলায় প্রবেশ করেছে বহুবিচিত্র ভোট-চীনীয় শব্দ। এই বইয়ে সংকলিত বিবিধ প্রবন্ধে বহুদর্শী লেখক নৃতত্ত্ব, ইতিহাস, সমাজতত্ত্ব এবং ভাষাতত্ত্বের সাম্প্রতিকতম গবেষণার আলোয় বাঙলা ভাষার গঠন নিয়ে একেবারে অনন্য এক ভাবনার সূত্রপাত ঘটিয়েছেন, যার গভীরতা বিস্ময়কর। বাঙলা ভাষা নিয়ে ভাবিত পাঠক এ বই পড়লে সম্পূর্ণ অন্য ভাবে বাঙলা ভাষার জগৎটিকে দেখতে শুরু করবেন।

     45.00
    Version : ebook - hardcopy
  • বাঙালি জাতটি ইদানীন্তন অথবা ভুঁইফোড় নয়, নিছক উদরপূর্তি ছাড়া জীবনকে সৌন্দর্যে ও লাবণ্যে মণ্ডিত করার জন্য এবং অন্তর্নিহিত শিল্পচেতনাকে বিকশিত করে তোলার জন্য যুগ-যুগ ধরে সামাজিক স্তরে তার এক ব্যাপক ও নিগূঢ় সাধনা চলে এসেছে। বাঙালির প্রাণবত্তারই সমষ্টিগত প্রকাশ সেই শিল্পচর্চা যুগে-যুগে তা কী ভাবে ও কেন কোন্‌ রূপ পরিগ্রহ করেছে, তার আঁকাবাঁকা স্রোতে কোথা থেকে কোন্‌ জলরাশি এসে তাকে পুষ্ট করেছে, তার বহুমুখী অবয়বের পরস্পরের মধ্যে কোন্‌ মিথক্রিয়া তার অগ্রগতিতে কী ভাবে সহায়তা করেছে– এ সব বৃত্তান্ত খানিক স্বচ্ছ হলে বোধ হয় বাঙলার শিল্পরূপটির সম্যক্‌ উপলব্ধি সম্ভব হয়। এই গ্রন্থের লেখক এই অভীপ্সায় দীর্ঘ দিন এই দুরূহ সন্ধানে ব্রতী। এবং এই গ্রন্থ তার বাস্তব পরিণাম।

     45.00
    Version : ebook - hardcopy
  • প্রমথ চৌধুরী জীবনভর বিদ্যাচর্চা করেছেন ও সেই সঙ্গে ছোট-বড় নানান পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত প্রবন্ধ ও পত্র-প্রবন্ধ লিখেছেন। সে সবের কিছু অংশ গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হলেও তার বাইরে রয়ে গেছে আরও অসংখ্য রচনা, বাংলা সাহিত্যের যা অমূল্য সম্পদ। টীকাভাষ্য-সহ এমন কিছু ‘অগ্রন্থিত রচনা’ই এই দ্বিতীয় খণ্ডে পাঠকের জন্য সাজিয়ে দেওয়া হয়েছে।

     50.00
    Version : ebook - hardcopy
  • প্রমথ চৌধুরী জীবনভর বিদ্যাচর্চা করেছেন ও সেই সঙ্গে ছোট-বড় নানান পত্র-পত্রিকায় নিয়মিত প্রবন্ধ ও পত্র-প্রবন্ধ লিখেছেন। সে সবের কিছু অংশ গ্রন্থাকারে প্রকাশিত হলেও তার বাইরে রয়ে গেছে আরও অসংখ্য রচনা, বাংলা সাহিত্যের যা অমূল্য সম্পদ। টীকাভাষ্য-সহ এমন কিছু ‘অগ্রন্থিত রচনা’ই এখানে পাঠকের জন্য সাজিয়ে দেওয়া হয়েছে।

     50.00
  • লোককথা পত্রিকার তৃতীয় সংখ্যায়
    অসমিয়া লোককথা

    ‘লোককথা’র এ সংখ্যার বিষয় অসমিয়া লোককথা। অসমিয়া লোককথার প্রথম সংগ্রাহক ছিলেন লক্ষ্মীনাথ বেজবরুয়া (১৮৬৮- ১৯৩৮)। তিনি তৎকালীন অসমের বিভিন্ন স্থানের বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে রূপকথাগুলো সংগ্রহ করেছিলেন। লিখিত বা মুদ্রিত রূপ দেবার আগে তিনি ‘নিজের ভাষায় রূপকথাগুলোকে সম্পূর্ণ নতুন করে’ লেখেন। নাম দেন ‘বুঢ়ি আইর সাধু’— বুড়িমায়ের রূপকথা। প্রকাশিত হয় ১৯১২ সালে। এটি অসমিয়া সাহিত্যে ক্লাসিক গ্রন্থ হিসেবে মর্যাদা পায়। লক্ষ্মীনাথ বেজবরুয়ার সার্ধশতবর্ষ সম্প্রতি শেষ হয়েছে। বর্ষ জুড়ে এই বই নিয়ে নানান আলোচনা হয়েছে। লোককথা-র পক্ষে এই প্রবাদপ্রতিম বইয়ে সংকলিত মোট ৩১টি গল্পের প্রথম ১৭টি গল্প প্রকাশ করা হল, বাংলায় যা অনূদিতও হল এই প্রথম। ভাষান্তর : মানিক দাস।

     35.00
  • সন্দীপ মুখোপাধ্যায়
    জঙ্গলমহলের জার্নাল

    এই জার্নালের লেখক পুরুলিয়া জেলায় নাবার্ড-এর অ্যাঙ্কর এনজিও-র একজন ব্লক সুপারভাইজার হিসাবে ২০১২ সালে পুরুলিয়ায় প্রথম পা রাখেন। তারপর গোটা প্রজেক্টের কো-অর্ডিনেটর হিসাবে পুরুলিয়ার বহু গ্রামে বহু বার যাওয়া-আসা করেছেন। আর সেই সূত্রে খুব কাছ থেকে, বলা যেতে পারে, একেবারে নিচুতলা থেকে দেখেছেন জঙ্গলমহলকে। স্বনির্ভর দলের চশমায় জঙ্গলমহলের খিদে, অনুন্নয়ন, অপুষ্টি, পিছিয়ে থাকা (রাখা), তার গর্ব, অভিমান, তার ঠকে যাওয়া আর হেরে যাওয়ার ইতিহাস, তার বেঁচে থাকা আর টিকে থাকার গল্প– ইত্যাদি প্রায় স-ব। সন্ত্রাস আর নৈরাজ্যের দিনগুলি পেরিয়ে এক গ্রাম থেকে আর-একটা গ্রাম, এক গুচ্ছ জীবন থেকে আর-এক গুচ্ছ জীবন, একটা ইতিহাস থেকে আর-একটা ইতিহাসের দিকে যেতে-যেতে তাঁর এই দু’ বছরের জার্নি-র গায়ে লেগে আছে জঙ্গলমহলের গাঁ-গেরাম থেকে উঠে-আসা ধুলোমাটি, আর তার স্যাঁতসেতে উন্নয়নের গন্ধ।

     50.00
  • সারা জীবনে এই একটি মাত্র পূর্ণাঙ্গ ছবি করার সুযোগ পেয়েছিলেন ছিলেন বারীন সাহা, আর এই একটি মাত্র ছবির সূত্রেই তিনি আজ কিংবদন্তি। এ ছবির একটি মাত্র প্রিন্ট আছে পুনের ফিল্ম ইন্সটিউটে, সেখান থেকে ফ্রেম বাই ফ্রেম ছবিটি দেখে লিখে নেওয়া এই চিত্রনাট্যের বয়ান। সঙ্গে ছবিটির দুর্লভ দশটি স্টিল।

     70.00