New

Muktir Jonyo Sanskritik Proyas

 160.00

In Stock

পাউলো ফ্রেইরি
মুক্তির জন্য সাংস্কৃতিক প্রয়াস 

পাউলো ফ্রেইরি-র শিক্ষাচিন্তার মূল কথা হল— প্রতিটি মানুষ এক-একটি স্বতন্ত্র স্বাধীন সত্তা, যিনি পৃথিবীকে পরিবর্তন করতে পারেন এবং নতুন করে গড়তে পারেন। মানুষের চেতনা রূপ পায় আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি আর মানুষটির নিজস্ব পারিপার্শ্বিকের প্রভাবে। তত্ত্ব-কর্ম-সমন্বয়ী বিশ্লেষণী চেতনা মানুষকে ভাবনা থেকে কাজে অগ্রসর হতে শেখায়। শোষকের আরোপিত নৈঃশব্দ্যের সংস্কৃতি নিপীড়ন জারি রাখতে সাহায্য করে এবং মিথ্যা কিছু ভাবনার মধ্যে মানুষকে আটকে রাখে। জ্ঞানার্জনের উদ্দেশ্যই হল শিক্ষার্থীর (সেই সঙ্গে শিক্ষকেরও) তত্ত্ব-কর্ম-সমন্বয়ী বিশ্লেষণী চেতনায়নের মাধ্যমে বাস্তব জীবনে মুক্তি অর্জনের পথ করে নেওয়া ।

পাউলো ফ্রেইরি-কে নিয়ে বিশ্লেষণমূলক কাজ এখানে বিশেষ হয়নি। তাঁর শিক্ষাতত্ত্বের প্রয়োগও খুব বিস্তারিত ও সংগঠিত ভাবে হয়নি। বিদ্যায়তনের অন্দরে বসে গবেষণা যথেষ্ট নয়। তাঁকে নিয়ে কোন অর্থপূর্ণ কাজ করতে গেলে দেওয়ালের বাইরে না এলে চলবে না। তা না হলে মূল ব্যাপারটাই থেকে যাবে অধরা। সমস্যা হল, প্রথাবহির্ভূত শিক্ষাও এদেশে প্রাতিষ্ঠানিক হয়ে পড়ে। দরকার চিন্তাভাবনাকে বাক্সের বাইরে নিয়ে আসা, জানলা দিয়ে বাইরে তাকানো। ‘শিক্ষাব্যবস্থা’ নামক জড়দ্‌গবটিকে ভাঙতে হলে, ফ্রেইরি-র শিক্ষাচিন্তা অধ্যয়ন করা তাই খুবই জরুরি। তাঁর সব বই-ই পড়া উচিত, কিন্তু প্রথমে পড়া উচিত ‘কালচারাল অ্যাকশন ফর ফ্রিডম’।

বাঙালি পাঠকের কাছে পাউলো ফ্রেইরি-কে একেবারে গোড়া থেকে পৌঁছে দেওয়ার জন্যই এই বইয়ের পরিকল্পনা। বাংলা ভাষায় ফ্রেইরি-র লেখা সাবলীল ভাবে পৌঁছে দেওয়ার মূল কাজটি করেছেন সবিতা বিশ্বাস এবং এ বই সম্পাদনা করেছেন সলিল বিশ্বাস, দু-জনেই প্রথাবহির্ভূত শিক্ষার কাজে দীর্ঘ অভিজ্ঞতাসম্পন্ন।

প্রথম সংস্করণ, ১১০ পৃষ্ঠা

Compare
Categories: , ,

Description

পাউলো ফ্রেইরি
মুক্তির জন্য সাংস্কৃতিক প্রয়াস 

পাউলো ফ্রেইরি-র শিক্ষাচিন্তার মূল কথা হল— প্রতিটি মানুষ এক-একটি স্বতন্ত্র স্বাধীন সত্তা, যিনি পৃথিবীকে পরিবর্তন করতে পারেন এবং নতুন করে গড়তে পারেন। মানুষের চেতনা রূপ পায় আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি আর মানুষটির নিজস্ব পারিপার্শ্বিকের প্রভাবে। তত্ত্ব-কর্ম-সমন্বয়ী বিশ্লেষণী চেতনা মানুষকে ভাবনা থেকে কাজে অগ্রসর হতে শেখায়। শোষকের আরোপিত নৈঃশব্দ্যের সংস্কৃতি নিপীড়ন জারি রাখতে সাহায্য করে এবং মিথ্যা কিছু ভাবনার মধ্যে মানুষকে আটকে রাখে। জ্ঞানার্জনের উদ্দেশ্যই হল শিক্ষার্থীর (সেই সঙ্গে শিক্ষকেরও) তত্ত্ব-কর্ম-সমন্বয়ী বিশ্লেষণী চেতনায়নের মাধ্যমে বাস্তব জীবনে মুক্তি অর্জনের পথ করে নেওয়া ।

পাউলো ফ্রেইরি-কে নিয়ে বিশ্লেষণমূলক কাজ এখানে বিশেষ হয়নি। তাঁর শিক্ষাতত্ত্বের প্রয়োগও খুব বিস্তারিত ও সংগঠিত ভাবে হয়নি। বিদ্যায়তনের অন্দরে বসে গবেষণা যথেষ্ট নয়। তাঁকে নিয়ে কোন অর্থপূর্ণ কাজ করতে গেলে দেওয়ালের বাইরে না এলে চলবে না। তা না হলে মূল ব্যাপারটাই থেকে যাবে অধরা। সমস্যা হল, প্রথাবহির্ভূত শিক্ষাও এদেশে প্রাতিষ্ঠানিক হয়ে পড়ে। দরকার চিন্তাভাবনাকে বাক্সের বাইরে নিয়ে আসা, জানলা দিয়ে বাইরে তাকানো। ‘শিক্ষাব্যবস্থা’ নামক জড়দ্‌গবটিকে ভাঙতে হলে, ফ্রেইরি-র শিক্ষাচিন্তা অধ্যয়ন করা তাই খুবই জরুরি। তাঁর সব বই-ই পড়া উচিত, কিন্তু প্রথমে পড়া উচিত ‘কালচারাল অ্যাকশন ফর ফ্রিডম’।

বাঙালি পাঠকের কাছে পাউলো ফ্রেইরি-কে একেবারে গোড়া থেকে পৌঁছে দেওয়ার জন্যই এই বইয়ের পরিকল্পনা। বাংলা ভাষায় ফ্রেইরি-র লেখা সাবলীল ভাবে পৌঁছে দেওয়ার মূল কাজটি করেছেন সবিতা বিশ্বাস এবং এ বই সম্পাদনা করেছেন সলিল বিশ্বাস, দু-জনেই প্রথাবহির্ভূত শিক্ষার কাজে দীর্ঘ অভিজ্ঞতাসম্পন্ন।

প্রথম সংস্করণ, ১১০ পৃষ্ঠা

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “Muktir Jonyo Sanskritik Proyas”