শুভেন্দু দাশগুপ্ত : এনআরসি নয়: জাতীয় পরিচয়পঞ্জি নিয়ে একটি চটি বইয়ের অংশ

আমাদের দেশের এখনকার এই সরকার

হঠাৎ বাছতে শুরু করল কে ‘দেশবাসী’, আর কে নয়।

কেন?

এখনকার এই ভারত সরকার ঠিক করে দিল

এই-এই থাকলে দেশে থাকা যাবে, নয়তো তাড়িয়ে দেওয়া হবে।

কেন?

আমরা কাজ করি, দেশ গড়ি, সরকার বানাই, সরকার পালটাই।

আমরা গান গাই, নাটক করি, গল্প লিখি, ছবি আঁকি,

খেলাধুলো করি, দেশকে এগিয়ে দিই।

আমরা ফসল ফলাই, জিনিস বানাই,

এখান থেকে ওখানে পৌঁছে দিই,

এটা গড়ি, ওটা সাজাই, আমরাই তো দেশবাসী।

নানা জনে অনেকে একসাথে জড়ো হয়ে থাকি, দেশ বাঁচাই।

এই কাগজ নেই, ওই প্রমাণ নেই, তো কী হয়েছে!

আমরা তো আছি।

আমাদের শ্রম আছে, সংস্কৃতি আছে,

আমাদের একসাথে থাকা আছে,

ভালোবাসা আছে, বন্ধুতা আছে।

আমরা আছি, আমাদের মা-বাবারা আছেন,

তাদের মা-বাবারা ছিলেন, আমাদের সন্তানেরা থাকবে।

আমরা অনুপ্রবেশকারী হলাম কী ভাবে?

আমরা দেশবাসী গতকাল ছিলাম,

আজও আছি, আগামীকালও থাকব।

এটাই সত্যি।

কী কাগজ থাকলে কী হবে, না-থাকলে কী হবে,

ওসব জানিও না, মানিও না।

আমরা সব একজোট হই। দেখি, কে আমাদের তাড়ায়।

লড়ব, ভয় পাব না।

আত্মহত্যা করব না।

যেমন বেঁচে আছি, তেমনই বেঁচে থাকব।

লড়ব।

বইপত্তর প্রকাশিত শুভেন্দু দাশগুপ্ত রচিত ও সোমশঙ্কর রায় চিত্রিত ‘এনআরসি নয়: জাতীয় পরিচয়পঞ্জি নিয়ে একটি চটি বই’য়ের অংশ

Leave a Reply